Navigation Menu+

গরুর গাড়ী

Posted on Jan 3, 2020 by in Bengali, Poems | 0 comments

বউ-গাড়ী আলা গরু গাড়ী জলদি চালাও রেলগাড়ি হুত করেছে ।
আর বাজান না খেয়ে বসে আছে রেল ইষ্টিসনে ।
বউ-গাড়ী আলা গরুর গাড়ী জলদি চালাও রেলগাড়ি হুত করেছে ।
আর বাজান না খেয়ে বসে আছে রেল ইষ্টিসনে ।
গাড়ী আলা-আর গরুর গাড়ী চলে নিজের ইচ্ছা মতন
ক্রেরত ক্রোরত ধীরে ধীরে , সময়ে আগে পৌঁছায়ে দিব রেল ইষ্টিসনে ।
বউ-গাড়ী আলা গরুর গাড়ী জলদি চালাও রেলগাড়ি হুত করেছে ।
আর বাজান না খেয়ে বসে আছে রেল ইষ্টিসনে । ।
গাড়ী আলা-আর গরুর গাড়ী চলে নিজের ইচ্ছা মতন কেরত কোরত ধীরে ধীরে,
কথা বললে নো শোনে উল্টা ধমক দিয়ে বসে থাকে রাস্তার মধ্যে ।
বউ-গাড়ী আলা গরুর গাড়ী জলদি চালাও রেলগাড়ি হুত করেছে ।
আর বাজান না খেয়ে বসে আছে রেল ইস্টিসনে ।
ছয়টা বাজে ছাড়বে রেলগাড়ি দেরি নো করিয়ে । অনেক দিন ধরে দেখিনা আর বাজানকে ।
গাড়ী আলা-আর গরুর গাড়ী চলে নিজের ইচ্ছা মতন কেরত কোরত ধীরে ধীরে,
কথা বললে নো শোনে উল্টা ধমক দিয়ে বসে থাকে রাস্তার মধ্যে ।
ছয়টার রেলগাড়ি নয়টা ছারে জীবন ভরে । ছিন্তা নো করিয়ে ।
বউ-গাড়ী আলা গরুর গাড়ী জলদি চালাও রেলগাড়ি হুত করেছে ।
আর বাজান না খেয়ে বসে আছে রেল ইষ্টিসনে ।
কুলক্ষণি কথা বলোনা আরে । রেল গাড়ী ফেল হলে দেখাবনে মজা তোয়ারে ।
গাড়ী আলা-আর গরুর গাড়ী চলে নিজের ইচ্ছা মতন কেরত কোরত ধীরে ধীরে,
কথা বললে নো শোনে উল্টা ধমক দিয়ে বসে থাকে রাস্তার মধ্যে ।
নারী জাতি বাহের বাড়ীর কথা মনে হলে, ছট ফোট ছট ফোট
পাগল হয়ে স্বামীকে পিছে ফেলে বাল বাচ্চা ঝোলা নিয়ে লম্ফ দিয়ে হাঁটে ।
স্বামী মিষ্টি পাইলা ছাতা নিয়ে পিছে পিছে ছুটে ।
বউ-গাড়ী আলা গরুর গাড়ী জলদি চালাও রেলগাড়ি হুত করছে ।
আর বাজান না খেয়ে বসে আছে রেল ইষ্টিসনে ।
মা আর পথের দিকে চেয়ে বসে আছে জানালা কাছে । বাজান কহন যে অবোলা মেয়েকে নিয়ে
দিবে আর মার বোকে । আর মা আরে জাবড়ায়ে ধরে বোক ভরে নিঃশ্বাস নিবে ।
গাড়ী আলা-আর গরুর গাড়ী চলে নিজের ইচ্ছা মতন ক্রেরত ক্রোরত ধীরে ধীরে,
কথা বললে নো শোনে উল্টা ধমক দিয়ে বসে রাস্তার মধ্যে ।
নারী জাতির বাহের বাড়ী মধুর হাড়ী বিয়ের পরে যায় গো ফুরিয়ে ।
শালার\সম্বন্ধী বৌ ছট ফটানি স্বামীর বাড়ী ইজ্জত যায় যে গো পাঞ্চর হয়ে।
বউ-গাড়ী আলা গরুর গাড়ী জলদি চালাও রেলগাড়ি হুত করছে ।
আর বাজানে না খেয়ে বসে আছে রেল ইস্টিসনে ।
গাড়ী আলা-আর গরুর গাড়ী চলে নিজের ইচ্ছা মতন, ক্রেরত ক্রোরত ধীরে ধীরে ,
কথা বললে নো শোনে উল্টা ধমক দিয়ে বসে রাস্তার মধ্যে।
আর বউ বাহের বাড়ীর কথা মনে হলে, হাঁড়ী পাতিল উর্ধ্বা মারে উল্টা ধমক দিয়ে মধ্যে খানে বসে ।
বউ-কি বল্লা ?হুঁ ।।।।